Wednesday , October 17 2018
Breaking News

গ্যালারিতে বাংলাদেশী সমর্থকদের ওপর লঙ্কানদের হামলা!

প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে টান টান উত্তেজনার ম্যাচটিতে শেষ মুহূর্তে জয়লাভ করে বাংলাদেশ। ২ বল বাকি থাকতে ৫ উইকেট জিতে বাংলাদেশ। এরপর উল্লাসে ফেটে পড়ে বাংলাদেশী সমর্থকরা। টাইগারদের হুঙ্কারে যোগ হয় তাদের হুঙ্কারও। এর পরই বাধে বিপত্তি। গ্যালারিতে ঘটে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। বাংলাদেশী সমর্থকদরে ওপর হামলা চালায় শ্রীলঙ্কার দর্শকরা।

হামলার শিকার হন বাংলাদেশ ক্রিকেট সাপোর্টারস অ্যাসোসিয়েশনের (বিসিএসএ) সদস্যরা। টাইগারদের সমর্থন জোগাতে বাংলাদেশ থেকে শ্রীলঙ্কায় পাড়ি জমান তারা।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান চলাকালে গ্যালারিতেই অবস্থান করছিলেন বিসিএসএ-র সদস্যরা। এমন সময় এক সদস্যের ওপর আচমকা চড়াও হন শ্রীলঙ্কান সমর্থকরা। শাসাতে থাকেন বাংলাদেশের অন্য সমর্থকদের। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে মাঠে দায়িত্ব পালন করা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীরা ছুটে আসেন। পরে তারাই শ্রীলঙ্কান সমর্থকদের শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন শ্রীলঙ্কার কয়েকজন সমর্থক।

আবারো হারল মাশরাফিরা

ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের নবম রাউন্ডে এসে দ্বিতীয় হারের স্বাদ পেল শিরোপাপ্রত্যাশী আবাহনী লিমিটেড। ২ মার্চ প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব আবাহনীকে প্রথম হারের স্বাদ দিয়েছিল। গতকাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে তাদের দ্বিতীয় হারের স্বাদ দিলো প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব। দোলেশ্বর প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটে ২৩২ রান করে। জবাবে ৪৯.৫ ওভারে সব ক’টি উইকেট হারিয়ে ২২৯ রানে শেষ হয় আবাহনীর ইনিংস। ফলে ৩ রানের দারুণ এক জয় পায় দোলেশ্বর। ব্যাট হাতে ২৮ রান করার পর বল হাতে ৩ উইকেট নিয়ে প্রাইম দোলেশ্বরের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন অধিনায়ক ফরহাদ রেজা। ম্যাচসেরার পুরস্কারটি উঠেছে তার হাতেই। এই জয়ের ফলে ৯ ম্যাচের ৫টিতে জিতে ১১ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান নিয়েছে প্রাইম দোলেশ্বর। সমান ম্যাচ থেকে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে আবাহনী রয়েছে শীর্ষে।

২৩৩ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১০০ রানের আগেই টপ অর্ডারের চারজন ব্যাটসম্যানকে হারায় আবাহনী। সাইফ হাসান ৬, শান্ত ৩, এনামুল হক ৩৪ ও মোসাদ্দেক হোসেন ১১ রানে ফিরে যান। আসা-যাওয়ার মধ্যে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন অধিনায়ক নাসির হোসেন। দলীয় ১৩৩ রানের মাথায় ব্যক্তিগত ৫৩ রানে ফিরে যান নাসির। সেখান থেকে ১৯১ রানের মধ্যে মানান শর্মা (১৭), মাশরাফি (৯) ও সানজামুল (৪) ফিরে গেলে ৮ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে আবাহনী। দলকে জেতাতে প্রাণান্তকর চেষ্টা করেন মোহাম্মদ মিথুন। ৬১ বলে ৪টি চার ও ১ ছক্কায় ৬০ রান করে দলীয় ২১৩ রানের মাথায় আউট হয়ে যান। তিনি ফিরে যাওয়ার পর আরিফুল ইসলাম সবুজ ১৫ বলে ২ ছক্কা ও ১ চারে ২১ রানের চোখ ধাঁধানো ইনিংস খেলে জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেন। কিন্তু জয়ের বন্দর থেকে ৩ রান দূরে থাকতেই আউট হয়ে যান। ফলে পরাজয়কে সঙ্গী করে মাঠ ছাড়ে আবাহনী। বল হাতে প্রাইম দোলেশ্বরের ফরহাদ রেজা ও আরাফাত সানী ৩টি করে উইকেট নেন। ২টি উইকেট নেন শরীফুল্লাহ। অপর উইকেটটি নেন জোহাইব খান।

এর আগে সকালে প্রাইম দোলেশ্বর প্রথমে ব্যাট করতে নামে। ফজলে মাহমুদের ৬৮, ফরহাদ হোসেনের ৬৩ ও ফরহাদ রেজার ২৮ রানে ভর করে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৩২ রানের সংগ্রহ পায় তারা। বল হাতে আবাহনীর মনন শর্মা ৪টি উইকেট নেন। ২টি করে উইকেট নেন আরিফুল ইসলাম সবুজ ও মাশরাফি বিন মুর্তজা।